প্রযুক্তি-ই কি অনিদ্রার জন্য দায়ী???

পরিবর্তনশীল সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষ হয়ে উঠেছে প্রযুক্তনির্ভর৷ বেড়েছে আধুনিকতা, অবহেলিত হয়েছে স্বাস্থ্য৷ রাতের স্বাভাবিক ঘুমে বাধ সেধেছে আধুনিক প্রযুক্তি৷ অগ্রাধিকার পেয়েছে টিভি অথবা মোবাইল ফোন৷ বিশেষ করে যারা শহরের বাসিন্দা, মূলত একা৷ একাকিত্ব দূরীকরণের একমাত্র অবলম্বন হিসেবে অনেকেই সঙ্গী করেন নিজের স্মার্টফোনকে৷ এভাবেই কেটে যায় সময়৷ আর, নিজের অজান্তেই আক্রান্ত হয়ে পড়েন অনিদ্রা রোগে৷

সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা যায়, গড়ে ৩১ শতাংশ মানুষ রাতে সাত ঘণ্টারও কম ঘুমোন৷ যা শুধুমাত্র বিস্ময়কর নয়, অস্বাস্থ্যকরও বটে৷ কারণ, দিনের স্বাভাবিক কাজকর্মের ৭-৯ ঘণ্টা ঘুমের প্রয়োজন হয়ে থাকে৷ অন্যদিকে, টিনএজারদের ঘুমের পরিমান আরও কম, প্রায় ৬ ঘণ্টার মত৷ ১১ শতাংশ মহিলা ঘুমান মাত্র ৫-৬ ঘণ্টা৷

গবেষণার ফলাফল থেকে উঠে আসে একটাই প্রশ্ন৷ ঘুমের সময় হ্রাসের মূল কারণ কী? অতিরিক্ত কাজ না অন্যকিছু৷ তথ্য জানাচ্ছে, বেশীরভাগ মানুষই ঘুমের সময় টেলিভিশন কিংবা স্যোশাল মিডিয়ায় সময় কাটাতে পছন্দ করেন৷ যা ব্যাঘাত ঘটায় স্বাভাবিক জীবনযাত্রায়৷ আবার, অনেকে দিনের শেষে নিজের ভবিষ্যতের অহেতুক চিন্তা করে সময় অতিবাহিত করেন৷ তাই বলা যায়, টেক-ফ্রেন্ডলি কালচার ক্রমাগত বাড়িয়ে চলছে অনিদ্রাকে৷ গবেষণার তথ্য অনুসারে, ৩২ শতাংশ মানুষ ঘুম থেকে ওঠার পরও ক্লান্তি অনুভব করেন৷ অনিদ্রা থেকে আসতে পারে অন্যান্য শারীরিক সমস্যাও৷ দীর্ঘদিন অনিদ্রাতে ভুগলে হতে পারে নানান শারীরিক জটিলতা৷ তাই, সময় থাকতে সাবধান হোন৷ প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শও নিতে পারেন৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *