বৈদ্যুতিক গাড়ি নিয়ে ঝুঁকি নিচ্ছে ভারত

বৈদ্যুতিক গাড়ি নিয়ে ঝুঁকি নিচ্ছে ভারত

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে বিহার, দিল্লি, কর্ণাটক, কেরালা, তামিলনাড়ুর মতো ১০টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার বাড়ানো নিয়ে উল্লেখযোগ্য কাজ করছে।

এই বাস্তবতায় নিতিন গড়করির বক্তব্য, ‘পরিবেশবান্ধব জ্বালানির প্রতি আমার পক্ষপাত আছে। এই খাতে যত গবেষণা হবে, ততই বৈদ্যুতিক গাড়ির দাম কমতে থাকবে, একসময় পেট্রলচালিত গাড়ির দামে নেমে আসবে এসব বৈদ্যুতিক গাড়ি।’

ভারতের সরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান নীতি আয়োগের তথ্যানুসারে, ২০৩০ সালের মধ্যে ভারতের টু ও থ্রি হুইলারের ৮০, বাসের ৪০ ও ৩০-৭০ শতাংশ ব্যক্তিগত গাড়ি বিদ্যুচ্চালিত হবে।

পৃথিবীর অন্যতম দূষিত শহর ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি। শুষ্ক মৌসুমে এই শহরে নিশ্বাস নেওয়াই কঠিন হয়ে পড়ে। শুধু দিল্লি নয়, উন্নয়নশীল দেশ ভারতের অনেক শহর এখন বিশ্বের সর্বোচ্চ দূষিত শহরের তালিকায়। এ পরিস্থিতিতে পরিবেশদূষণ রোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়ার গতি নেই ভারতের। কপ–২৬ শীর্ষ সম্মেলনে ভারতের অঙ্গীকার, ২০৭০ সালের মধ্যে তারা কার্বন নিঃসরণের হার প্রাক্‌শিল্প যুগের সাপেক্ষে শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনবে। আর ২০০৫ সালের সাপেক্ষে ২০৩০ সালের মধ্যে দূষণের মাত্রা ৪৫ শতাংশ হ্রাস করবে।

তবে শুধু বৈদ্যুতিক গাড়ি নয়, এই ভয়াবহ দূষণ থেকে বেরিয়ে আসতে ভারতের যোগাযোগব্যবস্থায় বড় পরিবর্তন নিয়ে আসতে হবে বলে মনে করেন ভারতের ভারী শিল্পমন্ত্রী নাথ পাণ্ডে। রাস্তায় হাঁটার পরিবেশ উন্নয়ন, গণপরিবহন, রেলওয়ে, উন্নত গাড়ি বা ইভি—এই সবকিছুর সমন্বয় ঘটাতে হবে বলে তিনি মনে করেন।

ভারতে যত জ্বালানি ব্যবহৃত হয়, তার ১৮ শতাংশই হয় পরিবহন খাতে। বছরে তার দরকার পড়ছে ৯৪ মিলিয়ন বা ৯ কোটি ৪০ লাখ টন জ্বালানি। আর চাহিদা যে হারে বাড়ছে, তাতে ২০৩০ সালে এই চাহিদার পরিমাণ দাঁড়াবে ২০০ মেট্রিক টন।

হাইড্রোজেন ব্যবহৃত হয় বৈদ্যুতিক গাড়িতে। আর তার ইঞ্জিনও প্রচলিত তেলভিত্তিক গাড়ির ইঞ্জিনের চেয়ে উন্নত। বৈদ্যুতিক গাড়ি ধোঁয়া নির্গত করে না, বরং বাষ্প ও পানি নির্গত করে। ভারতের শিল্পবিশ্লেষকদের মত, বৈদ্যুতিক গাড়ি প্রকল্প সফল হলে বছরে ভারতের ১৪ বিলিয়ন বা ১ হাজার ৪০০ কোটি ডলার সাশ্রয় হবে। টু ও থ্রি হুইলারের দ্রুত প্রচলন হলে এটা সম্ভব।

বৈদ্যুতিক গাড়ির প্রধান বিষয় হচ্ছে নিরাপত্তা। কিন্তু সম্প্রতি কয়েকটি বৈদ্যুতিক গাড়িতে আগুন লেগে যাওয়ায় এই গাড়ির ডিজাইন নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সে জন্য গাড়ির ডিজাইন নিয়ে আরও গবেষণার পরামর্শ দিয়েছেন নিতিন গড়করি। এ ছাড়া কিছুদিন আগে ভারতে বৈদ্যুতিক গাড়ি উৎপাদনের পরিকল্পনা বাতিল করেছে আমেরিকার গাড়ি কোম্পানি ফোর্ড মোটরস। সুনির্দিষ্ট কারণ না দেখালেও গত বছর তারা বলেছিল, অলাভজনক হওয়ায় গাড়ি উৎপাদন বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।

অর্থাৎ সমস্যা আছে। ডয়চে ভেলের এক সংবাদে বলা হয়েছে, গাড়ির উচ্চ মূল্য, অপর্যাপ্ত অবকাঠামো ও উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ইভির অভাব এই শিল্পের বিকাশে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। অবকাঠামোর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে চার্জিং স্টেশন। বলা হচ্ছে, বাজারে ১০ কোটি ইভি থাকলে গণচার্জার প্রয়োজন হবে ২৯ লাখ, যা মোটেও চাট্টিখানি কথা নয়।

ভারতে এখনো মোট বিক্রীত গাড়ির মাত্র ১ শতাংশ হচ্ছে ইভি। ফলে বিশ্লেষকেরা মনে করছেন, প্রতিটি রাজ্যের ইভির লক্ষ্যমাত্রা থাকা দরকার, অর্থাৎ কত সালের মধ্যে তারা কত ইভি নামাতে চায়। যেমন রাজধানী নয়াদিল্লির লক্ষ্যমাত্রা হলো, ২০২৪ সালের মধ্যে ২৫ শতাংশ বৈদ্যুতিক গাড়ি ব্যবহার নিশ্চিত করা। ইতিমধ্যে তাদের ১২ দশমিক ৫ শতাংশ গাড়ি বৈদ্যুতিক।

তবে ভারত সরকারের সামগ্রিক পরিকল্পনার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে করপোরেট খাতও এগিয়ে আসছে। মুকেশ আম্বানির রিলায়েন্স বলেছে, তারা হাইড্রোজেন জ্বালানির দাম ২০৩০ সালের মধ্যে কেজিপ্রতি ১ ডলারে নামিয়ে আনবে (এখন ৫ ডলার)। টাটা বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যাটারি কারখানা নির্মাণ করছে। সেই সঙ্গে সেমিকন্ডাক্টর বানাচ্ছে তারা। সামগ্রিকভাবে স্থানীয় সরবরাহব্যবস্থা তৈরি করছে তারা।

বিশ্লেষকেরা মনে করছেন, রিলায়েন্স ও আম্বানি বড় ধরনের ঝুঁকি নিচ্ছে ঠিক। তবে তারা যত বড় হয়েছে, সেই বাস্তবতায় এ ধরনের ঝুঁকি নেওয়া তাদের সাজে। ভারতের ভবিষ্যৎ রূপান্তরে এদের বড় ভূমিকা থাকবে।

Leave a Response