বাজেটে বাড়তি গুরুত্ব পেল না স্বাস্থ্যখাত

গত অর্থবছরে স্বাস্থ্যের জন্য বরাদ্দ ছিল ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা। এবার বরাদ্দ হয়েছে ৩৬ হাজার ৮৬৩ কোটি টাকা। অর্থাৎ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ বেড়েছে ৪ হাজার ১৩২ কোটি টাকা। তবে অনেকেই মনে করেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি বড় দুর্বলতা, তারা বরাদ্দ খরচ করতে পারে না। বছর শেষে এই মন্ত্রণালয় থেকে টাকা ফেরত যায়।

গত কয়েকটি অর্থবছরে মোট বাজেটের অংশ হিসেবে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ ৬ শতাংশের নিচে থেকে যাচ্ছে। করোনা মহামারি কালে ২০২০–২০২১ ও ২০২১–২০২২ অর্থবছরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ উল্লেখযোগ্য মাত্রায় বেড়েছে। তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় কম।

২০২০–২০২১ অর্থবছরে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ ছিল মোট জাতীয় বাজেটের ৫ দশমিক ৮ শতাংশ। সর্বশেষ ২০২১–২০২২ অর্থবছরে এই হার ছিল ৫ দশমিক ৪ শতাংশ। আর আগের তিনটি অর্থবছরে অর্থাৎ ২০১৭–১৮, ২০১৮–১৯ ও ২০১৯–২০ অর্থবছরে বরাদ্দ ছিল যথাক্রমে ৫ দশমিক ২, ৪ দশমিক ৮ এবং ৪ দশমিক ২ শতাংশ।

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি। তবে সরকার হঠাৎ করে বরাদ্দ বাড়াতে পারবে না। ধীরে ধীরে বরাদ্দ বাড়াতে হবে। গত সপ্তাহে রাজধানীর ডেইলি স্টার ভবনে বাংলাদেশ হেলথ ওয়াচ ও উন্নয়ন সমন্নয় আয়োজিত প্রাক্‌–বাজেট আলোচনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর আতিউর রহমান ২০২২–২৩ অর্থবছরে স্বাস্থ্য খাতের জন্য ৭ থেকে ৮ শতাংশ বরাদ্দ রাখার সুপারিশ করেছিলেন।

Leave a Response