ঋণ শোধে সরকারের দ্বারস্থ সেনা এডিবল

তপন কান্তি ঘোষ, বাণিজ্যসচিব

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, সেনা এডিবল অয়েল সরকারকে জানিয়েছে যে ভোজ্যতেলের ওপর একক নিয়ন্ত্রণ (মনোপলি) প্রতিষ্ঠা করার মাধ্যমে বাজারের অস্থিতিশীলতা রোধ করতে সেনাকল্যাণ সংস্থা সেনা এডিবল অয়েল প্রতিষ্ঠা করে। প্রতিষ্ঠাকালে কোম্পানিটি ৫৬০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করে, যার মধ্যে ৩৪০ কোটি টাকা ব্যাংকঋণ। এর মধ্যে বেসরকারি পূবালী ব্যাংক থেকে ১৪০ কোটি টাকা এবং ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড (ইডকল) থেকে ২০০ কোটি টাকা নেওয়া হয়েছে। সুদাসলে তা এখন দাঁড়িয়েছে ৪৩৪ কোটি টাকা।

সেনা এডিবল অয়েল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে আরও জানায়, করোনা পরিস্থিতির কারণে তারা আশানুরূপ সাফল্য অর্জন করতে পারেনি এবং বর্তমানে ঋণের অর্থ পরিশোধ করা তাদের জন্য দুরূহ।

জানতে চাইলে বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষ গত সোমবার মুঠোফোনে বলেন, ‘আসল টাকা তো আর মওকুফ করা যাবে না। সুদ নিয়ে কী করা যায়, সে ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। তবে যা করার পূবালী ব্যাংক ও ইডকলের পরিচালনা পর্ষদই করবে।’

পূবালী ব্যাংক ও ইডকলে ৪৩৪ কোটি টাকা দেনা সেনা এডিবল অয়েলের। এই ঋণ পরিশোধ করা দুরূহ বলে সরকারকে জানিয়েছে কোম্পানিটি।

সেনা এডিবল অয়েলের অন্যতম পণ্য হচ্ছে সেনা ফর্টিফাইড সয়াবিন তেল। তাদের ভোজ্যতেল পরিশোধন কারখানাটি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় অবস্থিত। ২০১৮ সালের জুনে স্থাপিত এই কারখানার দৈনিক তেল পরিশোধন সক্ষমতা শুরুর দিকে ছিল এক হাজার টন, যা বর্তমানে ৫০০ টন।

যোগাযোগ করা হলে পূবালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সাইফুল আলম খান চৌধুরী বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে তাঁদের ঋণটি পুনঃ তফসিল করা আছে। কিস্তি আসছে, ফলে ঋণটি নিয়মিত। যতটুকু জানি, ঋণ পরিশোধের জন্যই সেনা এডিবল অয়েল সরকারের সহযোগিতা চেয়েছে।’

পূবালী ব্যাংকের চেয়েও ইডকলের দেওয়া ঋণের পরিমাণ বেশি। ইডকলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ও নির্বাহী পরিচালক মো. আলমগীর মোরশেদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি সেনা এডিবল অয়েলকে দেওয়া ঋণ ও তার আদায় কার্যক্রম নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাননি।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন কোম্পানিটির পর্ষদ চেয়ারম্যান। পর্ষদে আরও রয়েছেন অর্থসচিব আবদুর রউফ তালুকদার, বিদ্যুৎসচিব হাবিবুর রহমানসহ আরও আটজন।

সেনা এডিবল অয়েলের সেনা, টি কে গ্রুপের পুষ্টি, সিটি গ্রুপের তীর, এস আলম গ্রুপের এস আলম, মেঘনা গ্রুপের ফ্রেশ, বাংলাদেশ এডিবল অয়েলের রূপচাঁদা ইত্যাদি হচ্ছে দেশের জনপ্রিয় ভোজ্যতেলের ব্র্যান্ড।

সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্য অনুযায়ী, দেশের বাজারে এক বছর আগে এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ছিল ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা। বর্তমানে এই দর ১৯৫ থেকে ২০০ টাকা। এ ছাড়া পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম এক বছর আগে ছিল ৬৪০ থেকে ৬৮০ টাকা, যা বর্তমানে ৯৭৫ থেকে এক হাজার টাকা।

রশিদ উল আলম আরও জানান, সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত এই বৈঠক থেকে চূড়ান্ত কোনো সুপারিশ আসেনি। আবারও বৈঠকের দরকার পড়বে।

Leave a Response