আরেক দফা বাড়ল মসুর ডালের দাম

মিরপুরের রূপনগর ও মগবাজারে ছোট দানার মসুর ডালের কেজি ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা। অর্থাৎ টিসিবির হিসাবের চেয়ে এই দুই বাজারে ছোট দানার মসুর ডালের দাম ৫ থেকে ১০ টাকা বেশি। খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, ছোট দানার মসুর ডাল পাইকারি বাজার থেকেই কিনতে হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকায়। ক্রেতাভেদে কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা লাভ করছেন তাঁরা।

এদিকে, আটা-ময়দার মূল্যবৃদ্ধির কারণে নতুন করে বেড়েছে নুডলস ও পাস্তার দাম। এ দুটি পণ্য এখন বাসাবাড়ি ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় নাশতা হিসেবে ব্যবহার করা হয়। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে ছোট ছোট ১২ প্যাকেটের নুডলসের একটি প্যাক ঈদের আগে বিক্রি হয় ২০০ টাকায়। গতকাল সেই দাম বেড়ে হয়েছে ২১৫ টাকা। আর ছোট ছোট আট প্যাকেটের সমন্বয়ে তৈরি নুডলসের মাঝারি প্যাক বিক্রি হচ্ছে ১৭৫ টাকায়। ঈদের আগে এ প্যাক ১৬৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। বিক্রেতারা জানিয়েছেন, গতকালই কোম্পানিগুলো নতুন দামের নুডলসের প্যাক বাজারে ছেড়েছেন।

ঈদের আগে ৪০০ গ্রামের দেশি পাস্তার একটি প্যাকেটের দাম ছিল ৬৫ টাকা। গতকাল কারওয়ান বাজারে তা বিক্রি হয় ৭৫ টাকায়। এ ছাড়া খোলা বিক্রি হওয়া পাস্তার কেজি ১০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১২০ টাকা।

টিসিবির হিসাবে, ঢাকার বাজারে তিন দিনের ব্যবধানে দেশি রসুনের দাম ছিল সর্বোচ্চ ৯০ টাকা। সেটি এখন বেড়ে হয়েছে ১২০ টাকা। আর আমদানি করা রসুনের দাম কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে এখন বিক্রি হচ্ছে ১৫০ টাকায়।

গতকাল কারওয়ান বাজার ঘুরে দেখা যায়, সয়াবিনের ১ লিটারের বোতল না থাকায় বিক্রেতারা ৫ লিটারের বোতল খুলে আধা লিটার, এক লিটার করে বিক্রি করছেন। এতে করে সরকারে বেঁধে দেওয়া ১৯৮ টাকা লিটারের সয়াবিন তেল ক্রেতারা কিনছেন প্রতি লিটার ২১০-২১৫ টাকায়। তবে নিম্ন আয়ের অনেক মানুষ ২০০ থেকে ৩০০ গ্রাম তেলও কিনছেন। এই প্রতিবেদকের সামনে একজন বিক্রেতা ৩০০ গ্রাম সয়াবিন তেলের দাম নেন ৭০ টাকা। সরকার বেঁধে দেওয়া লিটারপ্রতি দাম ১৯৮ টাকা ধরে হিসাব করলে ৩০০ গ্রাম তেলের দাম হওয়ার কথা ৫৯ টাকা ৪০ পয়সা।

মেরুল বাড্ডা থেকে কারওয়ান বাজারে মেসের বাজার করতে এসেছিলেন নাহিদ সরোয়ার। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘ভোগ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে আমরা পাড়া-মহল্লার দোকান থেকে বাজার করা বাদ দিয়েছি। কারওয়ান বাজার থেকে বাজার করলে দামে কিছুটা সাশ্রয় হবে, সেই আশায় এসেছিলাম। কিন্তু এখন পাড়ার দোকানের আর কারওয়ান বাজারের দামের খুব বেশি পার্থক্য নেই। পণ্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে আমাদের মেসের খাবারের খরচ ২০-৩০ শতাংশ বেড়েছে।’

Leave a Response